ডাকসু নির্বাচনের শুরুতেই অনিয়মের অভিযোগ: বিবিসি

নিউজ ডেস্ক
ঢাকা: দীর্ঘ ২৮ বছর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তবে অনিয়মের অভিযোগে একটি নারী হলের ভোটগ্রহণ সাময়িকভাবে বন্ধ রেখেছে প্রশাসন।

আজ সোমবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী আবাসিক হলে সিল মারা ব্যালট পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছে শিক্ষার্থীরা। খবর বিবিসি বাংলার

ওই ব্যালটে ছাত্রলীগের হল সংসদের প্রার্থীদের নামের পাশে সিল রয়েছে বলে অভিযোগ করছেন তারা।

সেই সাথে তারা হল প্রভোস্ট শবনম জাহানকে পদত্যাগের দাবি তোলেন। পরে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয় বরখাস্ত করে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক মাহবুবা নাসরিনকে ভারপ্রাপ্ত প্রভোস্ট হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে বিক্ষোভের মুখে হলের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ।

পরে ঘটনাস্থলে যান বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গোলাম রব্বানী। তিনি জানান, শিক্ষার্থীদের সব অভিযোগের প্রক্ষিতে তারা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

অধ্যাপক সামাদকে প্রধান করে একটি চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

এদিকে, রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক আবদুল বাসির জানিয়েছেন, এখন পর্যন্ত এমন কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি প্রশাসন। তবে এখন পর্যন্ত ভোট গ্রহণ বন্ধ রয়েছে।

শিক্ষার্থী ও হল সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা প্রেক্ষিতে ওই হলে পুনরায় ভোট শুরু করার কথা জানান তিনি।

এক ঘণ্টা পর ভোট গ্রহণ শুরু রোকেয়া হলে
এদিকে রোকেয়া হলেও নির্ধারিত সময়ের এক ঘণ্টা পরে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোটের প্রস্তুতি নিতে দেরি হওয়ার কারণে এই বিলম্ব হয়েছে বলে জানানা রিটার্নিং কর্মকর্তা।

এদিকে এ ব্যাপারে হল শাখার একজন স্বতন্ত্র প্রার্থী জানান, তাদের হলে স্টিলের ব্যালটে ভোট প্রক্রিয়া শুরু হলে তারা সন্দেহ প্রকাশ করে ব্যালট বাক্সগুলো দেখতে চান।

এসময় ভোট কর্মকর্তারা ব্যালট খুলে দেখাতে অস্বীকৃতি জানালেও পরে তারা ছয়টি ব্যালট বাক্সের মধ্যে তিনটি খুলে দেখান বলে জানিয়েছেন ওই প্রার্থী।

অন্যদিকে বিভিন্ন হলে কৃত্রি লাইন তৈরি করে সাধারন ভোটারদের বাধা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ছাত্রদলের ভিপি প্রার্থী।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।