অ্যাঞ্জেলিনা জোলি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গিয়ে যা বললেন

নিউজ ডেস্ক
ঢাকা: বাংলাদেশে সফররত হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি মঙ্গলবার কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শন করে তাদের সাথে কথা বলেছেন।

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সফরে এসেছেন হলিউডের জনপ্রিয় এই অভিনেত্রী। তবে তিনি এসেছেন মূলত জাতিসংঘের শুভেচ্ছা দূত হয়ে রোহিঙ্গাদের অবস্থা দেখতে। খবর বিবিসির।

কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের সাথে সাক্ষাতের পর তার ঢাকায় এসে প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে বৈঠকের কথা রয়েছে।

কক্সবাজার থেকে সংবাদদাতা জানাচ্ছেন, রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আজ ব্যস্ত সময় কাটিয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী। পরে গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন যে, যারা নির্যাতিত হয়েছে মায়ানমারে তাদের সাথে তার কথা হয়েছে।

‘নির্যাতিতরা বলেছেন যে হয় আমাদের বাংলাদেশে রাখো নাইলে গুলি করো। কিন্তু রাখাইনে ফেরত দিয়ো না।’

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি বলেন, সবার দায়িত্ব হলো রাখাইনে রোহিঙ্গাদের জন্য যথাযথ নিরাপত্তা নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত তাদের যেনো ফেরত না পাঠানো হয়। বাংলাদেশে এখন প্রায় এগারো লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী অবস্থান করছে।

রাখাইনে মায়ানমারের সেনাবাহিনীর ব্যাপক অভিযানের মুখে ২০১৭ সালের অগাস্টে রীতিমত ঢল নেমেছিলো রোহিঙ্গাদের।

এতো রোহিঙ্গাকে আশ্রয় ও অন্য সুবিধা দেয়ার জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়ানোর জন্য বিশ্ব সম্প্রদায়কে আহবান জানিয়েছেন অ্যাঞ্জেলিনা জোলি।

তিনি বলেন, ‘তবে সংখ্যাটা এতো বড় যে বাংলাদেশ সামলাতে পারবে না, সে কারণেই সবার সহযোগিতা দরকার’।

অ্যাঞ্জেলিনা জোলি বলেন রোহিঙ্গারা জাতি হিসেবে বাংলাদেশে এসেই প্রথমবারের মতো নিবন্ধিত হলো। এখন বিশ্ব সম্প্রদায়ের উচিত তারা যাতে নিজ দেশে নাগরিকত্ব পেয়ে মর্যাদার সাথে বসবাস করতে পারে সেটি নিশ্চিত করা।