কারচুপির শঙ্কার মধ্যেই সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু, সারাদেশে কঠোর নিরাপত্তা বলয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকা: ক্ষমতাসীন ও বিরোধী জোটের শঙ্কার মধ্যেই সকাল ৮টা থেকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। বিকেল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোটগ্রহণ চলবে।

৩০০ আসনের মধ্যে একজন প্রার্থীর মৃত্যুজনিত কারণে ২৯৯ আসনে আজ ভোটগ্রহণ করা হচ্ছে। স্থগিত হওয়া গাইবান্ধা-৩ আসনে ভোটগ্রহণ করা হবে ২৭ জানুয়ারি।

এবার ১০ কোটি ৪২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৭ জন ভোটারের জন্য মোট ৪০ হাজার ১৮৩টি নির্বাচনী কেন্দ্র, দুই লাখ ছয় হাজার ৭৭৭টি বুথ নির্ধারণ করা হয়েছে।

গণতন্ত্র এবং ভোটাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠার ঐতিহাসিক দিন আজ। দীর্ঘ ১০ বছর পর নীরব ব্যালট বিপ্লবের জন্য মুখিয়ে রয়েছেন সারাদেশের কোটি কোটি ভোটার। ১৯৩৭, ১৯৭০, ১৯৯১ সালের নির্বাচন যেমন ইতিহাসে গণতান্ত্রিক রাজনীতির বাঁক ঘুরিয়েছে; তেমনি আজকের নির্বাচনের ফলাফলের ওপর নির্ভর করছে আগামী দিনে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি চাই, একটা শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হোক। অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন হোক সেটাই আমাদের কাম্য। অন্যদিকে নতুন ভোটার, তরুণ, নারী ভোটারসহ সব বয়সের ভোটারদের ফজরের নামাজ পড়ে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে ঐক্যফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘যদি তুমি ভয় পাও তবেই তুমি শেষ, যদি তুমি ঘুরে দাঁড়াও, তবেই বাংলাদেশ’। এমনকি সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ ভোটারদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘আপনারা নির্ভয়ে ভোট দিন, আমরা আপনাদের আশপাশে থাকব’।

এদিকে নির্বাচন উৎসবমুখর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা। তিনি ভোটারদের নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। সেই সঙ্গে দল-মতের ঊর্ধ্বে থেকে নির্বাচনী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছেন। সিইসি বলেছেন, কোনো বাহিনীর নিষ্ক্রিয় ভূমিকার কারণে কোনো কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ ব্যাহত হলে অধিক্ষেত্রের বাইরে গিয়ে তদন্ত করে দোষী প্রমাণিত হলে প্রচলিত আইনে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

ভোটকেন্দ্র ও নির্বাচনী সামগ্রী, সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, পোলিং এজেন্টসহ সবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য সশস্ত্র বাহিনী, বিজিবি, পুলিশ ও র‍্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। নির্বাচনী এলাকায় তদন্ত কমিটি, জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কর্মরত রয়েছেন।

এ নির্বাচনে রেকর্ড সংখ্যক প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। উচ্চ আদালতের আদেশের পর বেশ কয়েকজনের প্রার্থিতা বাতিলের পর এখন মোট প্রার্থী এক হাজার ৮৬১ জন। এর মধ্যে ১২৮ জন স্বতন্ত্র প্রার্থী, বাকিরা দল মনোনীত।

দেশে ৩৯টি রাজনৈতিক দলের নিজস্ব প্রতীক থাকলেও এ নির্বাচনে জোটের মেরুকরণে অর্ধেক সংখ্যক দলই দুই মেরুতে ভিড়েছে। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তাদের জোটসঙ্গী বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, বিকল্পধারা ও তরিকত ফেডারেশনের ১৪ জনকে নৌকা প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছে। আওয়ামী লীগ তাদের মহাজোটের শরিক জাতীয় পার্টির জন্য ২৬টি আসন ছেড়ে দিয়েছে। এছাড়া জাতীয় পার্টি ১৪৮টি আসনে মুক্তভাবে দলীয় লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছে।

আর বিএনপি ধানের শীষ প্রতীক দিয়েছে গণফোরাম, জেএসডি, নাগরিক ঐক্য, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ, এলডিপি, খেলাফত মজলিস, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম, বিজেপি, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, এনপিপি ও পিপিবির ৪৩ জন প্রার্থীকে। এর বাইরে জোটে থাকা অন্যদলগুলো নিজ নিজ প্রতীকে তাদের প্রার্থী দিয়েছে।

ভোটের পরিবেশ সুষ্ঠু রাখতে এরই মধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। যেকোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে নির্বাচনী কর্মকর্তাসহ পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করেছে ইসি। এছাড়াও বিচার কার্য সম্পাদন করার জন্য মাঠে কাজ শুরু করেছে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট। কেন্দ্র থেকে ফলাফল ঘোষণার করারও চূড়ান্ত প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

২৯৯ আসনে ভোট ও একটি আসনে স্থগিত
নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেছেন, ৩০০ আসনের মধ্যে গাইবান্ধা-৩ আসনের একজন প্রার্থীর মৃত্যুজনিত কারণে সেখানকার ভোট স্থগিত করা হয়েছে। তার মানে ২৯৯ আসনে ভোটগ্রহণ করা হবে। গাইবান্ধা-৩ আসনে ভোটগ্রহণ করা হবে ২৭ জানুয়ারি।

ভোট কেন্দ্র ও ভোটার
সব মিলিয়ে এবার ৪০ হাজার ১৮৩টি ভোটকেন্দ্র আছে। কেন্দ্রগুলোতে ২ লাখ ৭ হাজার ৩১২টি ভোটকক্ষ আছে। মোট ভোটার ১০ কোটি ৪২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৭ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৫ কোটি ২৫ লাখ ৭২ হাজার ৩৬৫ জন এবং নারী ভোটার রয়েছেন ৫ কোটি ১৬ লাখ ৬৬ হাজার ৩১২ জন।

অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন: বাংলাদেশের ইতিহাসে এবারই প্রথম ইসির নিবন্ধিত ৩৯টি রাজনৈতিক দলই নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এর আগে কখনো সংসদ নির্বাচনে সবগুলো রাজনৈতিক দল অংশ নেয়নি। ২৯৯টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ৮৬১ জন। এর মধ্যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ৭৩৩ জন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ১২৮ জন প্রার্থী।

পর্যাপ্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনী: নির্বাচনী পরিস্থিতি ঠিক রাখতে মাঠে পর্যাপ্ত সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন রয়েছে। ভোটকেন্দ্র ও নির্বাচনী এলাকায় সশস্ত্র বাহিনী ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় ৬ লাখ ৮ হাজার সদস্য রয়েছে। এর মধ্যে পুলিশ প্রায় ১ লাখ ২১ হাজার জন, আনসার প্রায় ৪ লাখ ৪৬ হাজার ও গ্রাম পুলিশ প্রায় ৪১ হাজার।

৩৮৯টি উপজেলায় সেনাবাহিনীর ৪১৪ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন) সদস্য রয়েছেন। ১৮টি উপজেলায় নৌবাহিনীর ৪৮ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন) সদস্য, ১২টি উপজেলায় কোস্টগার্ডের ৪২ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন) ও বিজিবির ৯৮৩ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০জন) সদস্য রয়েছে। ৬০০ প্লাটুন (প্রতি প্লাটুনে ৩০ জন) র‍্যাব সদস্য ভোটের মাঠে নিয়োজিত আছে। এছাড়া মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্সের সংখ্যা (র‍্যাবসহ) প্রায় ২ হাজার প্লাটুন (প্রায় ৬৫ হাজার)। তাছাড়া সারা দেশে জেলা ও মহানগর পুলিশের টহল দল নিয়োজিত আছে।

পোলিং অফিসার নিয়োগ: প্রার্থীদের পোলিং অফিসাররা সকাল ৮টার আগেই প্রিজাইডিং অফিসারের কাছে নিয়োগপত্র দেখাবেন। অবশ্যই ওই পোলিং অফিসার দল বা প্রার্থীর মনোনীত হতে হবে। এসব বিষয়ে কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে ইসি ব্যবস্থা নেবে।

ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে ৬৬ জন দায়িত্বপালন করছেন। এর মধ্যে দুইজন বিভাগীয় কমিশনার এবং ৬৪ জন জেলা প্রশাসক।

ভোটের দায়িত্বে জুডিশিয়াল ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট: ভোটের মাঠে ১ হাজার ৩২৮ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাজ করবেন। এর মধ্যে আচরণবিধি প্রতিপালনের জন্য ৬৫২ জন, অবশিষ্ট ৬৭৬ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মোবাইল/স্ট্রাইকিং ফোর্সের সঙ্গে নিয়োজিত রয়েছেন। এ ছাড়াও বিচারিক কার্য সম্পাদন করার জন্য জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন ৬৪০ জন। নির্বাচনী অপরাধ দমনের জন্য সারাদেশে ১২২টি ইলেকটোরাল ইনকোয়ারি কমিটিতে আছে ২৪৪ জন। প্রিজাইডিং অফিসার ৪০ হাজার ১৮৩ জন। সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার ২ লাখ ৭ হাজার ৩১২ জন এবং পোলিং অফিসার ৪ লাখ ১৪ হাজার ৬২৪জন।

দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষক: সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশি-বিদেশি সংস্থা নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবে। এতে দেশি ৮১টি পর্যবেক্ষক সংস্থার ২৫ হাজার ৯০০ জন মাঠে কাজ করবেন। ফেম্বোসা, এএইএ, ওআইসি ও কমনওয়েলথ থেকে আমন্ত্রিত ও অন্যান্য বিদেশি পর্যবেক্ষক ৩৮ জন। কূটনৈতিক/বিদেশি মিশনের কর্মকর্তা ৬৪ জন এবং বাংলাদেশস্থ দূতাবাস/হাইকমিশন বা বিদেশি সংস্থায় কর্মরত বাংলাদেশি ৬১ জন।

ছয়টি আসনে ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ: এবারই প্রথম ছয়টি আসনের সব ভোটার ইভিএমের মাধ্যমে ভোট দেবেন। এই ছয়টি আসন হলো, ঢাকা-৩, ঢাকা-১৩, রংপুর-৩, খুলনা-২, সাতক্ষীরা-২ ও চট্টগ্রাম-৯।

যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা: শনিবার রাত ১২টা থেকে ভোটের দিন রোববার রাত ১২টা পর্যন্ত বেবি টেক্সি/অটোরিকশা/ইজিবাইক, ট্যাক্সি ক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিক-আপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পোসহ স্থানীয় যন্ত্রচালিত যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। একই সঙ্গে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে স্বল্প দূরত্বের নৌযান চলাচলের ওপর।

এ ছাড়া ভোটকে সামনে রেখে শুক্রবার রাত ১২টা থেকে ১ জানুয়ারি রাত রাত ১২টা পর্যন্ত মোট চার দিন সারাদেশে মোটরসাইকেল চালানোয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে নির্বাচন কমিশনের স্টিকার লাগানো মোটরসাইকেল এই নিষেধাজ্ঞার আওতামুক্ত থাকবে।

যান চলাচলের নিষেধাজ্ঞার সময় রিটার্নিং কর্মকর্তার অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও তাদের নির্বাচনী এজেন্ট, দেশি-বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য। তাছাড়া নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক ও কতিপয় জরুরি কাজ যেমন- অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদির কাজে নিয়োজিত যানবাহনে নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। এ ছাড়া মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিষেধাজ্ঞা শিথিলের বিষয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবে।

হেলিকপ্টার বন্ধ: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেসরকারি হেলিকপ্টার চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ইসি। শনিবার রাত ১২টা থেকে রোববার রাত ১২টা পর্যন্ত নিষেজ্ঞা আরোপ করো হয়েছে।

ফলাফল ঘোষণা: প্রতিটি ভোটকেন্দ্র থেকেই ফলাফল ঘোষণা করা হবে। প্রিজাইডিং অফিসার ভোটগ্রহণ শেষে সংশ্লিষ্টদের উপস্থিতিতে কেন্দ্রেই ভোট গণনা করবেন। এ সময় সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও প্রার্থীর এজেন্টরা উপস্থিত থাকতে পারবেন। ভোট গ্রণনা শেষে প্রিজাইডিং অফিসার লিখিত ফলাফল সংশ্লিষ্টদের সরবরাহ করবেন। পরে এ ফলাফল রিটার্নিং অফিসারের কাছে পাঠাবেন। রিটার্নিং অফিসাররা তা নির্বাচন কমিশনে পাঠাবেন। নির্বাচন কমিশনের ফোয়ারা প্রাঙ্গণে স্থাপিত মঞ্চ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল ঘোষণা করা হবে। এ চত্বরে নির্বাচন কমিশন দশটি মনিটরের মাধ্যমে ফলাফল প্রদর্শন করবে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক মহল এই নির্বাচনকে ‘অসমতল পরিবেশে নির্বাচন’ হিসেবে অবিহিত করেছেন। বিদেশি পর্যবেক্ষকদের ভাষায় এটা ‘অগণতান্ত্রিক পরিবেশে নির্বাচন’। দেশের সুশীলসমাজ, বিরোধী দল ও মিডিয়ার ভাষায় ‘একপক্ষীয় প্রচারণায় নিয়ন্ত্রিত নির্বাচন’। পুলিশি জুলুম-নির্যাতন, বাধা-বিপত্তি এবং মানুষের মধ্যে ভীতি-আতঙ্ক ছড়ানো এবং জায়ান্ট দুই প্রতিপক্ষের দাঁতে দাঁত ঠোকাঠুকি বিবাদের মধ্যেই অনুষ্ঠিত হচ্ছে বহুল আকাক্সিক্ষত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।