নির্বাচনি অনিয়মে জনগণের আস্থা ক্ষুন্ন, সুরাহা চায় জাতিসঙ্ঘ যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউ

নিউজ ডেস্ক
ঢাকা: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সঙ্ঘটিত যাবতীয় অনিয়ম তদন্ত করে সুরাহার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন। অন্য দিকে নির্বাচনী অভিযোগ আইনগতভাবে মোকাবেলার কথা বলেছে জাতিসঙ্ঘ।

অনিয়মের কারণে বাংলাদেশের নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ওপর জনগণের আস্থা ক্ষুন্ন হয়েছে। অনিয়মের এসব অভিযোগ স্বচ্ছতার সাথে তদন্ত করে সুরাহা করার জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)।

ওয়াশিংটন থেকে মঙ্গলবার দেয়া এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের উপ-মুখপাত্র রবার্ট পেলাডিনো বলেছেন, নির্বাচনের আগে হয়রানি, ভয়ভীতি প্রদর্শন ও সহিংসতার বিশ্বাসযোগ্য খবরে আমরা উদ্বিগ্ন। এ কারণে বিরোধীদলীয় অনেক প্রার্থী ও তাদের সমর্থকেরা অবাধে প্রচারণা চালাতে পারেননি।

নির্বাচনের দিন অনিয়মের কারণে কিছু ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারেননি। এটি নির্বাচনী প্রক্রিয়ার ওপর জনগণের আস্থা ক্ষুণ্ন করেছে।

সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে সহিংসতা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতিতে নির্বাচন কমিশনকে এসব অনিয়মের দাবি সুরাহা করতে গঠনমূলকভাবে কাজ করার অনুরোধ জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের দারুণ রেকর্ড এবং গণতন্ত্র ও মানবাধিকারের প্রতি শ্রদ্ধা পরস্পরের সাথে সম্পর্কযুক্ত। এ লক্ষ্যগুলো সমন্বিতভাবে এগিয়ে নিতে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন সরকার ও বিরোধীদের সাথে কাজ করতে যুক্তরাষ্ট্র আগ্রহী।

এ দিকে ইইউ থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১০ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো বিরোধী দলের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ভোটারদের অংশগ্রহণ গণতন্ত্রের প্রতি বাংলাদেশের জনগণের আকাঙ্খার প্রতিফলন। তবে নির্বাচনের দিনটি সহিংস ছিল। নির্বাচনের পুরো প্রক্রিয়ায় সব দলের জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে বড় ধরনের বাধা ছিল। এটি নির্বাচনী প্রচারণা ও ভোটের ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। এখন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অনিয়মের এসব অভিযোগ যথাযথভাবে তদন্ত করে পূর্ণ স্বচ্ছতার সাথে সুরাহা করা উচিত।

বিবৃতিতে বলা হয়, ইইউ চায় গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও মৌলিক অধিকার সুরক্ষার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এগিয়ে যাক। বাংলাদেশের জনগণের স্বার্থে ইইউ এসব কাজকে সমর্থন দিয়ে যাবে।
এ দিকে নির্বাচনী অভিযোগগুলো শান্তিপূর্ণভাবে এবং আইনগত পদ্ধতিতে মোকাবেলা করার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসঙ্ঘ। তারা বলেছে, বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচনে সহিংস ঘটনা ও অনিয়মের অভিযোগ সম্পর্কে জাতিসঙ্ঘ সচেতন রয়েছে।

নিউ ইয়র্কে জাতিসঙ্ঘের মুখপাত্র গতকাল এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা জানান। তিনি বলেন, ১০ বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো নির্বাচনে বিরোধীদের অংশগ্রহণকে জাতিসঙ্ঘ স্বাগত জানায়। আমরা সব পক্ষকে সর্বোচ্চ সংযম পালন করে নির্বাচন-পরবর্তী শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার আহ্বান জানাচ্ছি, যে পরিবেশে জনগণের সমাবেশ ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতা অক্ষুন্ন থাকবে।

সহিংসতা ও জানমালের ওপর আক্রমণ গ্রহণযোগ্য নয়। নির্বাচনী প্রচারণা ও ভোটগ্রহণের দিন প্রার্থী ও ভোটারদের হতাহতের ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন মুখপাত্র।