যতদ্রুত সম্ভব শপথ নিন ঐক্যফ্রন্টকে মাহি, এই বিজয়ের কৃতিত্ব আপনার হাসিনাকে বি. চৌধুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকা: জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে যতদ্রুত সম্ভব শপথ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে বিকল্পধারার সংসদ সদস্য মাহি বি চৌধুরী বলেছেন, শপথ গ্রহণের মধ্য দিয়ে জনগণের ভোটের প্রতি সম্মান জানানো হবে। অন্যথায় জনগণের সাথে প্রতারণা করা হবে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে শপথ গ্রহণের পর তিনি সাংবাদিকদের একথা বলেন।

মাহি বি চৌধুরী বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের একজন প্রতিনিধি হিসেবে আমরা সংসদে তরুণদের আশা-আকাঙ্খার প্রতিফলন ঘটে এমন বিষয়গুলোর উপর প্রাধান্য দিয়ে আইন প্রণয়নের কাজ করবো।’

জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদ ভবনের শপথ গ্রহণ কক্ষে নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান।

বিপুল বিজয় অর্জনের কৃতিত্ব শেখ হাসিনার: বি. চৌধুরী
বিকল্পধারা বাংলাদেশ’র প্রেসিডেন্ট ও যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি অধ্যাপক এ.কিউ.এম বদরুদ্দোজা চৌধুরী বলেছেন,একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোট প্রার্থীরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিপুল বিজয় অর্জনের কৃতিত্ব শেখ হাসিনার। তিনি পরপর তৃতীয়বারের মতো একটি মহাবিজয়ের রেকর্ড সৃষ্টি করেছেন।

বি. চৌধুরী বৃহস্পতিবার দুপুরে তার বারিধারার বাসভবন মায়া-বি’তে আয়োজিত বিকল্পধারার বিশেষ যৌথ সভায় একথা বলেন। একাদশ সংসদ নির্বাচনে পরপর তৃতীয়বারের মতো মহাবিজয়ের রেকর্ড সৃষ্টির জন্য প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মহাজোট নেত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান তিনি।

এসময় বি. চৌধুরী আরো বলেন, বিকল্পধারা বাংলাদেশ আশা করে, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের বিষ্ময়করধারা বাংলাদেশকে পৃথিবীর অগ্রগামী দেশগুলোর কাতারে দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাবে। তিনি বলেন, উন্নয়নের পাশাপাশি সুশাসন এবং জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় শেখ হাসিনার অব্যাহত অবদান তাকে স্মরণীয় ব্যক্তিত্বে পরিণত করবে। এই লক্ষ্য অর্জনে বিকল্পধারা বাংলাদেশ সব সময় শেখ হাসিনার পাশে থাকবে বলে বি. চৌধুরী উল্লেখ করেন।

বি. চৌধুরী আগামী উপজেলা নির্বাচনে অংশ গ্রহণে সর্বাত্মক প্রস্তুতি গ্রহণের জন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। এ ছাড়া সভায় বিকল্পধারার ইশতেহারে ঘোষিত প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা এবং দ্বিকক্ষবিশিষ্ট আইন সভার প্রস্তাবগুলি অন্যান্য প্রস্তাব বাস্তবায়নে দেশব্যাপী প্রচারণা এবং বিকল্পধারার সাংগঠনিক তৎপরতা জোরদার করার জন্য সভা-সমাবেশ অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর আগে বিকল্পধারার নব নির্বাচিত সংসদ সদস্য মেজর আবদুল মান্নান ও মাহী বি. চৌধুরীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান দলের নেতা-কর্মীরা।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহী বি. চৌধুরী এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য শমসের মবিন চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও যুক্তফ্রন্টের প্রধান সমন্বয়ক গোলাম সারোয়ার মিলন, প্রেসিডিয়াম সদস্য মজহারুল হক শাহ চৌধুরী, প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রউফ মান্নান, প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মুহম্মদ ইউসুফ, প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক আনোয়ারা বেগম, বিকল্পধারার কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুব আলী, মুনিরুল ইসলাম, ওবায়েদুর রহমান মৃধা, শ্রিপা রহিম, যুবধারার সভাপতি আসাদুজ্জামান বাচ্চু, ঢাকা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক হাফিজুর রহমান ঝান্টু, মহিলা নেত্রী জান্নাতুল ফেরদৌস প্রমুখ।

এদিকে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ী আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের নতুন মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ সোমবার অনুষ্ঠিত হবে।

ওইদিন বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে বঙ্গভবনে মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা শপথগ্রহণ করবেন। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তাদের শপথবাক্য পাঠ করাবেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবন সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।

এর আগে বিকালে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে বঙ্গভবনে যান আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন জানান, সাক্ষাৎকালে শেখ হাসিনাকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন রাষ্ট্রপ্রধান আবদুল হামিদ।

বিকাল ৪টায় বঙ্গভবনে পৌঁছেন শেখ হাসিনা। এ সময় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ।

তার আগে বেলা ১১টার কিছু সময় পর শেরেবাংলা নগরের সংসদ ভবনের পূর্ব ব্লকের প্রথম লেভেলের শপথকক্ষে শেখ হাসিনাসহ নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যরা শপথবাক্য পাঠ করেন।

সংসদ ভবনের পূর্ব ব্লকের প্রথম লেভেলের শপথকক্ষে একাদশ সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের শপথবাক্য পাঠ করান।

শপথ নিয়েছেন আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের ২৮৮ সংসদ সদস্য। এছাড়া স্বতন্ত্র আরও তিন জনপ্রতিনিধিও সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিয়েছেন।

৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট ২৮৮ আসনে জয়লাভ করে। আর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ৭ আসনে জয়ী হয়। মঙ্গলবার ২৯৮ সংসদ সদস্যের নামে গেজেট জারি করা হয়।

বাকি দুটির মধ্যে গাইবান্ধা-৩ আসনে একজন প্রার্থী মারা যাওয়ায় সেখানে নির্বাচন হয়নি।

এছাড়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের তিনটি কেন্দ্রে পুনর্নির্বাচন করতে হবে বলে সেখানে ফল স্থগিত রয়েছে।