একমাত্র ইসলামই সত্য, এটিই সঠিক পথ: খ্রিস্টান থেকে ধর্মান্তরিত নারী

নিউজ ডেস্ক
ঢাকা: একেবারে কোনো কিছু না থাকলে কিছুই সৃষ্টি হতে পারত না আর সকল কিছুই কিছু একটা থেকে এসেছে। আমার গল্প কিছুটা ব্যক্তিগত কিন্তু এটি এমন কিছু যাকে আমি অনেক দিন ধরেই আপনাদের সাথে ভাগাভাগি করবো বলে চিন্তা করে আসছিলাম।

আমার হৃদয়ের উত্তর সমূহ আমার সম্মুখেই উপস্থিত ছিল কিন্তু অন্যান্যদের মত আমি তা এড়িয়ে চলেছিলাম।

আমি খ্রিস্ট ধর্মে বিশ্বাসী এমন পরিবারে জন্ম গ্রহণ করি এবং বেড়ে উঠি। আর বছরের পর বছর ধরে মগজ ধোলাইয়ের পর আমরা আমাদের পথ ঠিকই খুঁজে পাই।

আমার আত্মা আশা হারিয়ে ফেলেছিল বিশেষত সৃষ্টিকর্তার ব্যাপারে। আমি ধর্ম সমূহের মধ্যে বাঁধা পড়েছিলাম কারণ আমি যত ধর্ম সম্পর্কে শুনেছিলাম তার সবগুলোই মানুষের দ্বারা পরিবর্তিত হয়েছিল।

আমি চিন্তা করেছিলাম আমি তরুণ বয়সে পাওয়া নীতি দিয়ে আমার জীবন অতিবাহিত করবো এবং আমার নিজের জন্য নিজেই নীতি তৈরি করবো।

আর কিছু বছর পূর্বে আমি এমন গভীরভাবে প্রার্থনা করেছিলাম যে, আমি বিশ্বাস করেছিলাম সৃষ্টিকর্তা আমাকে তার সাথে আরো দৃঢ় সম্পর্ক করার জন্য একটি পথ নির্দেশ করবেন।

আর তিনি তা করেছিলেন। কিন্তু আমি তা এড়িয়ে যাই। আমি অজ্ঞ ছিলাম। আর ২০১৪ সালের পূর্ব পর্যন্ত আমি এভাবেই অজ্ঞতা বসত সবকিছু এড়িয়ে যেতে থাকি। এভাবেই একসময় আমি তা বুঝতে পারি।

আমি এমন বিশ্বাস নিয়ে বেড়ে উঠেছিলাম যে, ইসলাম একটি খারাপ এবং ঘৃণামূলক ধর্ম যা নারীদের প্রতি বৈষম্য করে।

গণমাধ্যম সমূহ আমাদের শিক্ষা দেয় যে, বিশ্বের মুসলিমদের জন্যই সন্ত্রাসী শব্দটি মানানসই এবং আল্লাহ তায়ালা আমার সৃষ্টিকর্তার চাইতে আলাদা কেউ।

আর প্রত্যেক সময় আমার হৃদয় যখন শান্তি আর সত্য খুঁজে পেত আমি তার মধ্যে অনেক সাদৃশ্য দেখতে পাই যা আমাকে ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসী বানিয়েছে। এমনকি আমার মস্তিষ্ক আমাকে এই উপলব্ধি দিয়েছে যে, একমাত্র ইসলাম ধর্মই সত্য, এটিই সঠিক পথ।

আমি ভীত ছিলাম
আমার পরিবার কি বলবে, আমার বন্ধু বান্ধব এবং যারা আমাকে চিনে তারা কি বলবে ইত্যাদি ভেবে আমি খুব ভীত ছিলাম।

সময়ের সাথে সাথে আমার দ্বিধা ধন্ধ ধীরে ধীরে দূর হয়ে যায়। আমি দেখতে পাই যে, মুসলিমরা শান্তিপ্রিয় জাতি এবং তারা এক আল্লাহর আরাধনা করে।

বর্তমান বিশ্বে অন্তত ১.৬বিলিয়ন মুসলিম রয়েছে আর তারা কোনো কিছু দ্বারা বাধ্য হয়ে এই ধর্ম পালন করছে না। তারা আসলে সত্য খুঁজে পেয়েছে।

আমি ধীরে ধীরে আমার মধ্য থেকে খারাপ বিষয় সমূহ দুর করেছি। আমি একেবারে কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্থান করেছিলাম। আমি হয়ত ডানে বা বামে ঝুঁকে পড়ছিলাম।

এভাবেই আমি মূল কেন্দ্রে এসে পৌঁছাই আর আমাকে এখানে আনার জন্য কেউই ছিলনা। শেষ পদক্ষেপ নেয়ার জন্য নিজে থেকেই আমাকে চেষ্টা করতে হয়েছে।

সেপ্টেম্বর মাসের ১৬ তারিখে আমি স্থানীয় একটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র ইসলাম গ্রহণের উদ্দেশ্যে শাহাদা পাঠ করি। আর সে সময় আমি অনুভব করতে থাকি যে, এত বছর যাবত বয়ে বেড়ানো যন্ত্রণার অবসান ঘটেছে।

ওই রাতে আমি অনেক কেঁদেছিলাম। আসলে আমি টানা দুদিন কেঁদেছিলাম। কিন্তু আমার এক বন্ধু জানালো, সব কিছু ঠিক আছে। আসলে আমার পুনর্জন্ম হয়েছে।

যদি আপনি আল্লাহর দিকে এক পদক্ষেপ অগ্রসর হোন তবে তিনি আপনার দিকে দৌড়ে আসবেন। আমি সত্যিই খুব ভাগ্যবান অনুভব করি যে, তিনি আমাকে ইসলামের দিকে ধাবিত করেছেন।

পরীক্ষা এবং কষ্ট
আমি জানি কেন সবকিছু ঘটে থাকে আর কেনইবা আমি এত কষ্টের মধ্য দিয়ে দিন অতিবাহিত করেছিলাম। এতসব কিছু ঘটেছিল আমার আজকের অবস্থানে আসার জন্যই।

যখন আপনি সৃষ্টিকর্তা কে খুঁজে পাবেন তখন আপনি বিশ্বাস করবেন যে, তিনি সবসময় আপনার নিকটেই রয়েছেন। আপনি বিশ্বাস করবেন যে, আপনার প্রতিটি শব্দ হারিয়ে যাবে কারণ সকল কিছুই পূর্ব থেকেই নির্ধারিত এবং সকল কিছুর পেছনে কোনো না কোনো কারণ রয়েছে।

আর আপনি শান্তি খুঁজে পাবেন। আর এটিই ইসলাম শব্দটির মূল অর্থ।

সূত্র: এবাউটইসলাম ডট কমে প্রকাশিত একজন নও মুসলিম নারীর কলাম থেকে।