যুক্তরাজ্য বিএনপির কাউন্সিলে যাচ্ছেন তারেক রহমান

প্রবাস ডেস্ক
ঢাকা: যুক্তরাজ্য বিএনপির কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে। প্রাণচাঞ্চল্য ফিরেছে দলীয় কার্যালয়ে। আগামী ২ জানুয়ারি লন্ডনস্থ বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হবে। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ওই কাউন্সিলকে ঘিরে প্রতিদিনই দলীয় কার্যালয়ে পদপদবী প্রত্যাশী নেতাকর্মীরা ভিড় করছেন। লবিং করছেন দলটির নীতি-নির্ধারণী ফোরামের কাছে।

দলীয় সূত্র জানিয়েছে, পূর্ব লন্ডনস্থ দলীয় কার্যালয়ে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় কাউন্সিলের প্রথম অধিবেশন শুরু হবে। ওই অধিবেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের । বেলা সাড়ে ১২টা পর্যন্ত চলবে ওই অধিবেশন। দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হবে বিকাল ৩টায়। ওই অধিবেশনে যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন জোনাল কমিটির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকরা গোপন ব্যালটে ভোট দেবেন। তাদের ভোটে নির্বাচিত হবেন নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এবারও সভাপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে আছেন বর্তমান সভাপতি এমএ মালিক। বিগত আন্দোলন-সংগ্রামে বলিষ্ঠ ভূমিকা ও তার যোগ্য নেতৃত্বের কারণে যুক্তরাজ্য বিএনপি অনেক শক্তিশালী হয়েছে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার বিরোধী নানা ইস্যুতে লন্ডনের রাজপথে জোরালো কর্মসূচি পালন করেছেন। তাই সব শ্রেণীর নেতাকর্মীদের আস্থা অর্জন করায় তিনি এবারও সভাপতির দায়িত্ব পেতে পারেন। তবে সভাপতি পদে আরও দুজনের নাম শোনা যাচ্ছে। তারা হলেন সাবেক সভাপতি শায়েস্তা চৌধুরী কুদ্দুস ও সহ-সভাপতি আখতার হোসেন।

এদিকে সাধারণ সম্পাদক পদে বেশ কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে। তারা হলেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক কয়সর এম আহমেদ, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মামুন, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নাসিম চৌধুরী, সদস্য ও যুক্তরাজ্য যুবদল শাখার সাবেক আহ্বায়ক নিয়াজ চৌধুরী। তবে সাধারণ সম্পাদক পদে এগিয়ে আছেন নাসিম চৌধুরী। সব কিছুই নির্ধারণ হবে আগামী ২ জানুয়ারি কাউন্সিলের দ্বিতীয় অধিবেশনে ভোটের মাধ্যমে।

এবিষয়ে যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এমএ মালিক বলেন, বিএনপি একটি বৃহৎ গণতান্ত্রিক দল। তাই গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে সম্মেলনে গোপন ভোটের মাধ্যমে আগামীর নেতৃত্ব নির্বাচিত হবেন। আশা করি নতুন কমিটির নেতৃত্বে যুক্তরাজ্য বিএনপি শক্তিশালী হবে। একইসঙ্গে আন্দোলন-সংগ্রামে জোরালো ভূমিকা পালন করবে।