তারেকের ওপর লেখা বইয়ের মোড়ক উন্মোচনে ডা. জুবাইদা

নিজস্ব প্রতিবেদক
লন্ডন: বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের জন্মদিনে তার ওপর লেখা প্রথম মৌলিক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়েছে। তারেক রহমানের সহধর্মীনি ডা. জুবাইদা রহমান বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেন।

লন্ডনের ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের (ইউসিএল) থিয়েটার হলে বাংলাদেশ সময় সোমবার প্রথম প্রহরে ‘তারেক রহমান ও বাংলাদেশ’ নামক গ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর, গবেষক, গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব এবং বুদ্ধিজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।

নতুন বইয়ে তারেক রহমানের এই ‘উদার রাজনীতির মডেল’ উপস্থাপিত হয়েছে বলে জানানো হয়।

বইয়ের মোড়ক উন্মোচনের পর ‘বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ: তারেক রহমানের ভিশন’ শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা দেন অনুষ্ঠানের সমন্বয়কারী ইউসিএল-এর পোস্ট ডক্টরেট ফেলো ড. রুহুল আমিন খন্দকার। উপস্থিত দর্শক ও অতিথিদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন ‘তারেক রহমান ও বাংলাদেশ’ বইয়ের লেখক সাংবাদিক এম মাহাবুবুর রহমান।

অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়া বিশিষ্টজনরা বলেছেন, বাংলাদেশের রাজনীতিকে নতুনভাবে সাজাতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারেক রহমান। পরিবার, রাজনীতি ও পারিপার্শিক পূর্ব অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে তিনি ইতিবাচক বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা নিয়েছেন। উদার রাজনীতির মডেল নিয়ে তারেক রহমান দেশে ফিরবেন বলে অনুষ্ঠানে ঘোষণা দেয়া হয়।

প্রকাশনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ডেমোক্রেটিক পলিসি ফোরাম বাংলাদেশ এবং ইউসিএল-এর একটি গবেষক টিম।

গবেষণাধর্মী নতুন বইটি লিখেছেন রয়টার্সের সাংবাদিক এম মাহাবুবুর রহমান। বইয়ের ভূমিকা লিখেছেন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী ও জাতীয় অধ্যাপক ড. তালুকদার মনিরুজ্জামান। বইটি প্রকাশ করেছে নিউইয়র্ক বাংলা প্রকাশনী। প্রকাশক ডেমোক্রেটিক পলিসি ফোরাম বাংলাদেশ-এর নির্বাহী পরিচালক পারভেজ মল্লিক।

বইয়ের প্রকাশক ও ডেমোক্রেটিক পলিসি ফোরাম, বাংলাদেশ-এর নির্বাহী পরিচালক পারভেজ মল্লিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেন-কার্ডিফ ইউনিভার্সিটির সাবেক প্রফেসর ড. কেএমএ মালিক, রয়টার্সের সাসটেইনবিলিটি অ্যান্ড কর্পোরেট সিনিয়র ম্যানেজার রেচেল মোচলি, লন্ডনের কিলবার্ন অ্যান্ড হ্যাম্পস্টেডের কনজার্ভেটিভ অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান জিওভ্যান্নি স্পিনেলা, বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির সাবেক উপদেষ্টা এম মুখলিসুর রহমান চৌধুরী, ইমপেরিয়াল কলেজের মেডিসিন বিভাগের ফ্যাকাল্টি ড. মনজুর শওকত, বিএনপির আন্তর্জাতিক সম্পাদক মাহিদুর রহমান, যুক্তরাজ্য বিএনপির সভাপতি এমএ মালিক, কার্ডিফ মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির ডাটা সায়েন্সের ফ্যাকাল্টি ড. ইমতিয়াজ খান, সাংবাদিক অলিউল্লাহ নোমান, অক্সফোর্ড গ্রাজুয়েট ও রাজনীতিক সাইদ আল নোমান তুর্য প্রমুখ। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ব্যারিস্টার গিয়াস উদ্দিন রিমন।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই তারেক রহমানের তৃণমূল রাজনীতির ওপর একটি ডকুমেন্টারি, বইয়ের ওপর রাজনীতিক ও পেশাজীবীদের শুভেচ্ছা ডকুমেন্টারি উপস্থাপন করা হয়।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব ও বুদ্ধিজীবী মামনুন মোরশেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক ড. কামরুল হাসান, বাংলাদেশ বিমানের সাবেক কান্ট্রি ম্যানেজার সৈয়দ মইনুদ্দিন আহমেদ, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়সর এম আহমেদ, সাংবাদিক ও কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব আবু তাহের চৌধুরী, মেজর অব. সিদ্দিক, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নসরুল্লাহ খান জুনায়েদ, সদস্য সচিব ব্যারিস্টার তারিক বিন আজিজ, সাংবাদিক আতাউল্লাহ ফারুক প্রমুখ।

মৌলিক এ গবেষণা গ্রন্থে তারেক রহমানের রাজনৈতিক রূপরেখা ও গতিপথের ওপর ১১টি অধ্যায় রয়েছে। শেষ অধ্যায়ে বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী ও পেশাজীবীদের মূল্যায়নমূলক লেখা সংযোজন করে বইটিকে সমৃদ্ধ করা হয়েছে। বইয়ে গবেষণা টিমে ছিলেন মাহবুবা নাজরীনা জেবিন ও এফএম ফয়সাল।

বুদ্ধিজীবী ও পেশাজীবীদের মধ্যে লিখেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি রাষ্ট্রবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ, প্রয়াত সাংবাদিক সিরাজুর রহমান, অর্থনীতিবিদি ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক, ড. মাহবুবউল্লাহ, সাংবাদিক ডেভিড নিকলসন, জেমস স্মিথ, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি প্রফেসর ড. আবদুল লতিফ মাসুম, কবি ও সাংবাদিক আবদুল হাই শিকদার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মোহাম্মদ কামরুল আহসান, আইনজীবী এমএ সালাম, ব্লগার ও শিক্ষক একেএম ওয়াহিদুজ্জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. মোর্শেদ হাসান খান, ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের (ইউসিএল) পোস্ট ডক্টোরাল ফেলো ড. মো. রুহুল আমিন খন্দকার, ইউনাইটেড নেশনস্ করেসপন্ডেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সদস্য ও জাস্ট নিউজ সম্পাদক মুশফিকুল ফজল আনসারী, আমার দেশ-এর সাংবাদিক অলিউল্লাহ নোমান, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সহকারি অধ্যাপক ড. এম মুজিবুর রহমান, সাংবাদিক ও লেখক মাহবুবা নাজরীনা জেবিন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।