হঠাৎ মোবাইল নাম্বারটি বন্ধ করে দিলেন মির্জা ফখরুল!

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকা: হঠাৎ করেই নিজের ফোন নাম্বার বন্ধ করে দিলেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। কেন এমনটি করলেন এর কারণও জানালেন।

দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে- অসাধু কেউ বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের মোবাইল নম্বরটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তা ‘প্রতারণমূলকভাবে’ ব্যবহার করছে। ফলে ওই নম্বরটি তিনি আর ব্যবহার না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

ওই নম্বর থেকে ফোন এলে সে বিষয়ে নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার অনুরোধ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এর ব্যবহৃত ০১৭৭৭৯৯০৯৮৮ এই মোবাইল নম্বরটি হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে প্রতারণামূলকভাবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এখন থেকে মহাসচিব মহোদয় উল্লিখিত মোবাইল নম্বরটি আর ব্যবহার করবেন না।’

মোবাইল ছাড়াও এর আগে ইন্টারনেটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকেও মির্জা ফখরুল হয়রানির শিকার হয়েছিলেন।

এর আগে তার নামে ভুয়া ফেইসবুক আইডি খুলে নানা বক্তব্য দেওয়ার পর সংবাদ সম্মেলন করে দলের জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছিলেন, ‘বিএনপির মহাসচিবের নামে কোনো ফেইসবুক একাউন্ট নেই। যারা তার নাম দিয়ে এই একাউন্ট খুলেছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থার প্রতি আমরা অনুরোধ রাখছি।’

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, মির্জা ফখরুলের ওই ফোন নম্বরটি ব্যবহার করে দেশব্যাপী বিভিন্ন জেলা-উপজেলার কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে একটি চক্র ফায়দা লুটছিল। বিষয়টি পরে মির্জা ফখরুলের নজরে আসলে দলের অভ্যন্তরে এ বিষয়ে আলোচনা করেন। এরপরই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়, তিনি আর ওই নম্বরটি ব্যবহার করবেন না।

প্রসঙ্গত, এর আগে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নামেও ভূয়া ফেসবুক আইডি খুলেও একটি চক্র বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে আসছিল। পরে সাংবাদিক সম্মেলন করে তা নাকচ করা হয় দলের পক্ষ থেকে।

‘ফেসবুকে তারেক রহমানের অ্যাকাউন্ট নেই’
এর আগে ২০১৪ সালের ১ জুন নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, তাদের দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নিজস্ব কোনো ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বা ব্লগ নেই।

মির্জা ফখরুল বলেন, তারেক রহমানের নামে ফেসবুকে এক বা একাধিক অ্যাকাউন্ট (ফেইক) খোলা হয়েছে। তার নামের কোনো অ্যাকাউন্ট থেকে কোনো বক্তব্য বা কোনো কিছু প্রকাশিত হলে তারেক রহমানের বা বিএনপির বলে বিবেচিত হবে না।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।