খালেদা-কাদেরের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক
ঢাকা: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যের কড়া জবাব দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

ডা. মিলন দিবস উপলক্ষে রবিবার বিকেলে দেয়া এক বাণীতে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া বলেন, আমাদের গণতন্ত্র আবারও গভীর খাদের কিনারে গিয়ে পড়েছে। ৫ জানুয়ারির ভোটারবিহীন নির্বাচনের মধ্য দিয়ে আবারও গণতন্ত্রকে হত্যা করে একদলীয় দুঃশাসনের করাল গ্রাসে গিলে ফেলা হয়েছে বহুদলীয় গণতন্ত্রের পথচলা।

গণতন্ত্রের শত্রুরা গণতন্ত্রের সকল প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে ফেলেছে। মানুষের নাগরিক স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে। মানুষের জীবন এখন দুঃর্বিষহ। গণতন্ত্র ধ্বংসকারী অপশক্তিগুলোর চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে দিতে আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণতন্ত্রকে মজবুত ভীতের ওপর দাঁড় করাতে হবে।

এর জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশের রাজনীতি বা গণতন্ত্র নয় বরং বিএনপিই এখন গভীর খাদের কিনারে।

সোমবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ চত্বরে শহীদ ডা. মিলনের সমাধির সামনে বাংলাদেশ মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শহীদ ডা. মিলনের ২৭তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একেএম নাসির উদ্দিন, শহীদ ডা. মিলনের মা সেলিনা আক্তার, বিএমএ মহাসচিব অধ্যাপক ডা. এম এ আজিজ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল আমরা দেখেছি কফিনের ভিতরে গণতন্ত্রের লাশ। গণতন্ত্র নয়, বিএনপির রাজনীতি আজ গভীর খাদের কিনারায়। সব কিছুতে ব্যর্থ হয়ে তারা এখন অস্ত্রের ভাষায় কথা বলছে। খালেদা জিয়া মাঠের রাজনীতি ছেড়ে অস্ত্রের রাজনীতি শুরু করেছেন।

‘গণতন্ত্র এখন খাদের কিনারে’ বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার এমন বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বেগম খালেদা বলেছেন ৫ জানুয়ারি নাকি গণতন্ত্রের জন্য কলঙ্কের দিন। আমি বলতে চাই বিএনপি যে রাস্তায় পেট্রোল বোমার তান্ডব চালিয়েছে, আগুনে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে সেগুলো কি তাদের জন্য জায়েজ হয়ে গেছে নাকি?

উল্লেখ্য, ‘৯০ এর স্বৈরাচার বিরোধী গণআন্দোলনে ডাঃ সামছুল আলম খান মিলন নিহত হন।

মিলনের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, ডা. মিলন হচ্ছে গণতন্ত্রের প্রতীক। দিন দিন গণতন্ত্র প্রিয় জনগণের হৃদয়ে শ্রদ্ধার আসনে অধিষ্ঠিত হচ্ছেন তিনি।

বিএনপির জন্যই আওয়ামী লীগ স্বৈরাচারের সাথে জোট করতে বাধ্য হয়েছে বলে মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, ‘জাতীয় পার্টির সাথে আওয়ামী লীগের সম্পর্ককে কৌশলগত’। ‘জাতীয় পার্টির সাথে সম্পর্ককে আদর্শগত নয়’ বলেও উল্লেখ করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, খালেদা জিয়া এবং তার দল রাজাকারদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে বলে আওয়ামী লীগ স্বৈরচারের সাথে জোট বেধেছে ।

ওবায়দুল কাদের আরো বলেন, বিএনপি যদি গত সংসদ নির্বাচনে আসতো তাহলে তাদের আজ এই অবস্থা হতো না। কেউ যদি নির্বাচনে না আসে তবে সে দোষ কার? সেই দায়ভার কার? নির্বাচনের ট্রেন তো আর কারো জন্য থেমে থাকে না। তারা সেই ট্রেন মিস করেছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ও পরে আগুন সন্ত্রাস করে গণতন্ত্র রক্ষার নামে বিএনপি যে আন্দোলন করেছিল, তা জনগণ মেনে নেয়নি। এ কারণেই তারা পরবর্তীতে কোনো আন্দোলনে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে পারেনি। আর এই নৈরাশা থেকেই আজ দলটির নেতা-কর্মীরা দিশেহারা।

কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ কখনো অগণতান্ত্রিক কথা বলে না, অগণতান্ত্রিক আচরণও করে না। বরং বিএনপি সব দিক থেকে এখন ব্যর্থ হয়ে অস্ত্রের ভাষায় কথা বলছে। তারা হাতুরি পিটিয়ে নিজেদের ঢোল বাজানোর চেষ্টা করছে।

উল্লেখ্য ২০০৮ সালের ৯ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সেই সময়ের মহাজোটের অধীনে জোটবদ্ধ হ্য় আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি। ২০১৪ সালের ১০ম জাতীয় নির্বাচনে মহাজোট থেকে বের হয়ে আলাদা নির্বাচন করে জাতীয় পার্টি এবং বর্তমান সংসদে তারা প্রধান বিরোধী দলের ভূমিকায় রয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।