সাকিব নিষিদ্ধ, হোয়াটসঅ্যাপে জুয়াড়ির সাথে কী কথা হয়েছিল?

খেলা ডেস্ক: সাকিব আল হাসানের সাথে ২০১৭ সালে প্রথমবারের মতো যোগাযোগ করেন দিপাক আগারওয়াল নামের একজন বুকি।

মূলত তার সাথে হওয়া সকল যোগাযোগ আইসিসির কাছে দাখিল না করার দায়েই বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) সাকিব আল-হাসানের শাস্তি সংক্রান্ত বিবৃতিতে বাংলাদেশী অল-রাউন্ডারের অপরাধের ধরণ এবং ঘটনাপ্রবাহ ব্যাখ্যা করে।

বিবৃতিতে আইসিসি বলছে, ২০১৭ সালে সাকিব আল হাসানের সাথে জুয়াড়ি মি. আগারওয়াল যখন যোগাযোগ করেন তার আগেই সাকিব জানতেন যে আগারওয়ালের কাছে তার ফোন নম্বর দেয়া হয়েছে।

সেবার সাকিব আল হাসানের সাথে দেখা করার অনুরোধও করেন মি. আগারওয়াল।

এছাড়াও তিনি সাকিব আল হাসানের কাছে আরো কিছু ক্রিকেটারের ফোন নম্বর জানতে চান।

এরপর ২০১৮ সালে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ের মধ্যে ত্রিদেশীয় সিরিজের বিষয়েও দিপাক আগারওয়াল ও সাকিবের মধ্যে আবারও হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে যোগাযোগ শুরু হয়।

২০১৮ সালের ১৯শে জানুয়ারি একটি ম্যাচে সেরা খেলোয়াড় হওয়ার জন্য মি. আগারওয়াল সাকিব আল হাসানকে অভিনন্দন জানান।
এরপর আরেকটি হোয়াটসঅ্যাপ বার্তায় সাকিবকে প্রশ্ন করেন, “আমরা কি কাজ করছি? নাকি আইপিএল পর্যন্ত অপেক্ষা করবো?”

“কাজ” বলতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল নিশ্চিত করেছে যে সাকিবের কাছে দলের ভেতরের তথ্য জানতে চেয়েছেন আগারওয়াল।

এরপর সাকিবকে আরো একটি বার্তা পাঠান আগারওয়াল। বার্তাটি এরকম: “ভাই, এই সিরিজে কোনো কিছু আছে?”

সাকিব আল হাসানের প্রধান অপরাধ এসব তথ্য তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের কাছে রিপোর্ট করেননি।

২০১৮ সালের ২৬শে এপ্রিল সাকিব আল হাসান হায়দ্রাবাদ সানরাইজার্সের হয়ে মাঠে নামেন, কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের বিপক্ষে।

সেসময় সাকিবের কাছে ‘নির্দিষ্ট’ কোনো ক্রিকেটার খেলছেন কিনা সেটা জানতে চান আগারওয়াল।

বুকি দিপাক আগারওয়াল এরপর বিটকয়েন, ডলার একাউন্ট ও ডলার একাউন্টের বিস্তারিত সম্পর্কে জানতে চান সাকিবের কাছে।

সাকিব এসবের উত্তর দিতে গিয়ে বলেন, “আগে আমার সাথে দেখা করেন।”
২৬শে এপ্রিল আরো কিছু হোয়াটসঅ্যাপ বার্তা মুছে ফেলা হয়েছিল। সাকিব আল হাসান আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলকে বলেছেন যে এসব বার্তায় তার কাছে কিছু তথ্য জানতে চাওয়া হয়েছিল।

আগারওয়ালকে আইসিসির কাছে ‘সন্দেহজনক’ বলে উল্লেখ করেন সাকিব আল হাসান।

সংস্থাটিকে দেওয়া সাকিবের সাক্ষাৎকারে এটা নিশ্চিত করে যে তিনি এসব প্রস্তাবের কোনোটিতেই সায় দেন নি।

তবে সাকিব কোনো এসব প্রস্তাবের কথা আইসিসির কাছে প্রকাশ করেননি?

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল নিশ্চিত করেছে যে এটা কোনো বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়।

সাকিবকে তিনবার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে, কোনোবারই সাকিব সেকথা আইসিসিকে জানান নি।

চলতি বছরের ২৯শে জানুয়ারি ও ২৭শে অগাস্ট সাকিব আল হাসানের সাক্ষাৎকার নেয় আইসিসি।

সব ধরনের ক্রিকেট থেকে বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল আইসিসি।

আইসিসিরি দুর্নীতি-বিরোধী নিয়ম বা অ্যান্টি করাপশন কোড লংঘনের তিনটি অভিযোগ সাকিব আল হাসান স্বীকার করে নেয়ার পর এই সিদ্ধান্তের কথা জানালো সংস্থাটি।

আইসিসির ওয়েবসাইটে এই সিদ্ধান্তটি জানানো হয়েছে। ম্যাচ ফিক্সিং-এর প্রস্তাব পাওয়ার পর সেটা গোপন করার অভিযোগে তাকে এই সাজা দেওয়া হয়েছে।

দুই বছরের নিষেধাজ্ঞার মধ্যে এক বছর স্থগিত নিষেধাজ্ঞা।

আইসিসি বলছে, আগামী এক বছর তিনি খেলতে পারবেন না, কিন্তু তিনি যদি সাজার সব শর্ত মেনে চলেন তাহলে তিনি ২০২০ সালের ২৯শে অক্টোবর থেকে মাঠে ফিরে আসতে পারবেন।

তবে সাকিব আল হাসান এই রায়ের বিপক্ষে আপিল করতে পারবেন না।

২০১৮ সালে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ের মধ্যে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ ও ২০১৮ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে দুর্নীতির প্রস্তাব দেয়া হয় সাকিব আল হাসানকে।

সাকিব সেটা যথাযথ কর্তৃপক্ষ অর্থাৎ আইসিসির এ্যান্টি করাপশন ইউনিটকে জানায়নি।

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে ত্রিদেশীয় সিরিজে এবং ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ বনাম কিংস ইলেভেন পাঞ্জাবের একটি ম্যাচে সাকিব দুর্নীতির প্রস্তাব পান।

আইপিএলের ম্যাচটি ২০১৮ সালের ২৬শে এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয়।

আইসিসির বিবৃতি অনুযায়ী ২০২০ সালের ২৯শে অক্টোবর পর্যন্ত তার নিষেধাজ্ঞা থাকবে।

আইসিসির এ্যান্টি করাপশন ট্রাইব্যুনালের শুনানিতে সাকিব আল হাসান দায় স্বীকার করেন।

এরপর তার স্থগিত নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে যেখানে সাকিবকে সন্তুষ্ট করতে হবে যে তিনি আর অপরাধের পুনরাবৃত্তি করবেন না।

আইসিসির দেয়া বিবৃতিতে সাকিব আল হাসান বলেন, “আমি খুব দুঃখিত, আমার নিষেধাজ্ঞার জন্য। আমি খেলাটি ভালোবাসি, তবে আমার বিরুদ্ধে আনা দায় আমি মেনে নিয়েছি। দুর্নীতির বিরুদ্ধে আইসিসির যে অবস্থান সেখানে আমি আমার দায়িত্ব যথাযথ পালন করতে পারিনি।”

অ্যালেক্স মার্শাল, যিনি আইসিসির জেনারেল ম্যানেজার, তিনি বলেন, ” সাকিব অভিজ্ঞ একজন ক্রিকেটার, সে অনেক প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে গিয়েছেন, এটা তার দায়িত্ব ছিল এই প্রস্তাবগুলো রিপোর্ট করা।”

আইসিসির জেনারেল ম্যানেজার আশা করছেন, সাকিব আর এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটাবেন না এবং ভবিষ্যতে আইসিসির দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সাহায্য করবেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।