যুক্তরাষ্ট্রের দশ অঙ্গরাজ্যজুড়ে ভূমিকম্পের ধাক্কা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
নিউইয়র্ক: যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক থেকে ওয়াশিংটন পর্যন্ত বিস্তীর্ণ অংশে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেলের (বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোর) দিকে কম্পন অনুভূত হয়েছে। রিখটার স্কেলে এই ভূমিকম্পের তীব্রতা ছিল ৫.১। প্রায় দশটি রাজ্যে অনুভূত হয় এই কম্পন।

ভূমিকম্প গবেষণা সংস্থা ইউএসজিএসের মতে, ‘এই কম্পনের উৎসস্থল ছিল ডেলওয়ারে এলাকা।’ ডেলওয়ারের উপসাগরীয় এলাকা থেকে উত্তর-পশ্চিমে ছয় কিলোমিটার দূরে ডোভারে প্রথম অনুভূত হয় কম্পন। এরপর তা আরও পশ্চিমে ছড়িয়ে পড়তে থাকে।

ইউএসজিএসের পক্ষ থেকে প্রকাশিত তথ্য অনুসারে, ‘বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪.৪৫ নাগাদ ভূমিকম্প হয়। ডেলওয়ারে ছাড়াও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলি হল নর্থ ক্যারোলিনা, ভার্জিনিয়া, ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া, ম্যারিল্যান্ড, নিউ জার্সি, পেনসিলভানিয়া এবং কানেক্টিকাট।’

যেসব ভয়াবহ ভূমিকম্পে কেঁপেছিল বিশ্ব
গত একশ’ বছরে ভূমিকম্পের কারণে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। যদিও এই সময়ে প্রযুক্তির অনেক উন্নতি ঘটেছে, কিন্তু তাতে ভূমিকম্পের কারণে মানুষের মৃত্যু খুব একটা ঠেকানো সম্ভব হয়নি।

১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭

মেক্সিকোতে ৭.১ মাত্রার ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা দুইশো ছাড়িয়েছে। ভূমিকম্পে যখন মেক্সিকো কেঁপে উঠে তখন মেক্সিকো সিটির মানুষ ভূমিকম্পের মহড়ায় অংশ নিচ্ছিল। মাত্র ১২ দিন আগেই গত ৭ই সেপ্টেম্বর দেশটিতে ৮.১ মাত্রার ভূমিকম্প হয়েছিল, যদিও সেটি ততটা বিধ্বংসী ছিল না। ওই ভূমিকম্পে দক্ষিণ মেক্সিকো ও গুয়াতেমালায় প্রাণ হারিয়েছিল ৬৫ জনেরও বেশি মানুষ। খবর বিবিসির।

২৪ অগাস্ট ২০১৬

ইতালিতে ৬ মাত্রার ভূমিকম্পে প্রায় হারায় অন্তত ২৯৮ জন। ওই ভূমিকম্পে মূলত প্রাচীন শহর অ্যামাট্রিস প্রায় বিধ্বস্ত হয়ে যায়। ধ্বংস হয়ে যায় শত বছরের ঐতিহাসিক ভবন।

১৬ এপ্রিল ২০১৬

ইকুয়েডরে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে সাড়ে ছয়শোরো বেশি মানুষ নিহত হয়। এছাড়া আহত হয় ১৬ হাজারের বেশি মানুষ। ধ্বংস হয়ে যায় সাত হাজার ভবন।

২৬ অক্টোবর ২০১৫

আফগানিস্তানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলে আঘাত হানে ৭.৫ মাত্রার ভূমিকম্প। এতে পাকিস্তানে প্রাণ হারায় অন্তত ৪০০ মানুষ। পাকিস্তান ছাড়াও ভারতের উত্তরাঞ্চল ও তাজিকিস্তানেও ভূমিতকম্প অনুভূত হয়।

২৫ এপ্রিল ২০১৫
নেপালে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে আট হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়। হাজার হাজার মানুষ গৃহহীন হয়েছে। ১৯৩৪ সালের পর দেশটিতে ওটাই ছিল সবচেয়ে বড় প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ঘটনা। নেপালের কয়েকটি পাহাড়ী এলাকায় প্রায় ৯৮ শতাংশ ঘরবাড়িই ধ্বংস হয়ে যায়।

৩ অগাস্ট ২০১৪
চীনের ইউনান প্রদেশে ৬.১ মাত্রার ভূমিকম্পে প্রাণ হারায় ছয়শোর মতো মানুষ। হাজার হাজার ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে যায়। ভূমিকম্পের ফলে ভূমিধ্বসের ঘটনাও ঘটে। প্রায় দুই হাজার চারশো মানুষ এতে আহত হয়।

১৫ অক্টোবর ২০১৩

ফিলিপিন্সে বোহোল ও কেবু নামক এলাকায় ৭.২ মাত্রার ভূমিকম্পে দুইশোরো বেশি মানুষ প্রাণ হারায়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।