যুক্তরাষ্ট্রের উচিত ইসরাইল রাষ্ট্রটিকে শাস্তির আওতায় আনা: ইলহান ওমার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ওয়াশিংটন: যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসওম্যান ইলহান ওমার চলতি মাসে এক সাক্ষাতকারে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের উচিত ইরানের মত করে ইসরাইল রাষ্ট্রটিকেও শাস্তির আওতায় আনা। তিনি আরো বলেন, ইসরাইলকে একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে পরিচয় দেওয়াতে তার ‘ব্যাপক হাসির উদ্রেক করে।’

ইলহান ওমার সোমালিয়ায় জন্মগ্রহণ করা ইথিওপিয়া থেকে আসা একজন অভিবাসী যিনি ডেমোক্রেট পার্টির হয়ে মিশিগান অঙ্গরাজ্য থেকে রাশিদা তালিব নামের অপর মুসলিম নারীর সাথে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের প্রথম কংগ্রেসওম্যান হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি ইসরাইলকে বয়কট করা এবং দেশটির বিরুদ্ধে বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা আরোপের পক্ষে মত দিয়ে থাকেন।

ইলহান ওমার ইতোমধ্যেই ইসরাইলের সমালোচক হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন এবং তার সাম্প্রতিক চমক হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাকে শক্তিশালী powerful House Foreign Affairs Committee তে নিযুক্ত করেছেন যেটি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি এবং পররাষ্ট্র সহায়তা নিয়ে কাজ করে।

ইয়াহু নিউজের জাইনাব সালবি নামের এক সাংবাদিককে ‘Through Her Eyes’ নামে দেয়া এক সাক্ষাতকারে ইসরাইল সম্পর্কে ওমারের মতামত জানতে চাওয়া হয়। জাইনাব সালবি ওমারকে উদ্দেশ্য করে বলেন,

‘আমি ইসরাইল সম্পর্কে কথা বলতে চাই কারণ এটি এখন তর্কের বিষয়। আপনার মতে যুক্তরাষ্ট্র কিভাবে ইসরাইল এবং ফিলিস্তিনিদের মধ্যে একটি দীর্ঘ মেয়াদী শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে পারে?’

উত্তরে ওমার বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ঐতিহাসিক ভাবেই ইসরাইল রাষ্ট্রের পক্ষ নিয়েছে।

তিনি আরো বলেন- ‘দুটো দেশকেই সমান ভাবে দেখার উদ্যোগ হিসেবে আমরা এমন পদক্ষেপ নিয়েছি যাতে করে একটি দেশকে অন্য আরেকটির উপর বড় করে দেখানো হয়। আর একে আমরা আলোচনা এবং দুই-রাষ্ট্রের মধ্যকার সমাধানের ফাঁদে পেলে দিয়েছি।’

যখন জাইনাব সালবি ওমারের উদ্দেশ্যে আরো পরিষ্কার করে বলেতে অনুরোধ করেন, উত্তরে ওমার ইসরাইলের সমালোচনা করে বলেন, ওয়াশিংটনের এমন একটি দেশের প্রতি সমর্থন করা উচিত নয়ে যে দেশটি তার ভেতরকার অ-ইহুদি নাগরিকদের প্রতি বৈষম্য করে আইন পাশ করে।

তিনি বলেন- ‘আমি যখন দেখি যে, ইসরাইল সরকার এমন আইন তৈরী করে যাতে করে ইসরাইল একটি ইহুদি রাষ্ট্রে পরিণত হয় এবং অন্যান্য ধর্মাবলম্বী যারা ইসরাইলে বাস করে তারা এর অংশ নয় এমন বলা হয় তখন আমরা একে মধ্যপ্রাচ্যের একটি গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে আখ্যায়িত করি। আমার তখন হাসি পায় কারণ ঠিক একই কারণে আমরা অন্যদের সমালোচনা করি।’

‘আমরা ইরানের প্রতি বৈষম্য মূলক আচরণ করি। আর এখন আমি সৌদি আরবের প্রতিও এমন আচরণ দেখতে পাচ্ছি সুতরাং আমি এইসমস্ত ভিন্নতা দেখে আতঙ্কিত হই।’

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের জুলাই মাসে ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনাজামিন নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টির উদ্যোগে একটি আইন পাশ হয়। এই আইনে আরবীকে ইসরাইলের বেসরকারি ভাষা করা হয়, আইনি ক্ষেত্রে ইসরাইলকে একটি ইহুদি রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয় এবং অন্যান্য ধর্মাবলম্বী ইসরাইলিদের সমতার ব্যাপারটি উহ্য রাখা হয়।

এদিকে Democratic Majority for Israel এর প্রধান মেলাম্যান বলেন, ‘ইসরাইল এমন একটি দেশ যা এখানে বসবাস কারী সকলের অধিকারের নিশ্চয়তা দেয়। এবং ইসরাইলের আদালতসমূহে আরব এবং ইহুদি দুই জাতির বিচারক রয়েছেন।’

তিনি ইলহান ওমারের সমালোচনা করে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের সদস্যদের উচিত কথা বলার পূর্বে তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে জেনে নেয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রের জনগণকে সত্য জানানো। আর এ দিক থেকে কংগ্রেসওম্যান ওমার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছেন।’

সূত্র: টাইমস অফ ইসরাইল ডট কম।