ভারত-পাকিস্তানকে সংযত থাকতে বলছে বিশ্ব

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
ইসলামাবাদ: ভারত শাসিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলার জের ধরে ২৬শে ফেব্রুয়ারি ভোররাতে পাকিস্তানের সীমা অতিক্রম করে ভারতের বিমান বাহিনী। পুলওয়ামা হামলার জন্য জইশ-ই-মোহম্মদ জঙ্গির সংগঠনের ঘাঁটি ধ্বংস করেছে এবং বহু সংখ্যক হতাহত হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় বাহিনী। তবে তা অস্বীকার করছে পাকিস্তান। দুদেশের মধ্যে আজকে আবার নতুন করে চরম উত্তেজনা শুরু হয়েছে।

ভারত-পাকিস্তান সংঘাতে দুপক্ষকে সংযত থাকতে বলছে বিশ্ব নেতারা
পাকিস্তান বলছে, তারা দুটি ভারতীয় যুদ্ধবিমানকে ভূপাতিত করেছে
পাকিস্তান প্রথমে দুজন ভারতীয় পাইলটকে আটক করার দাবি করলেও পরে একজন আটক আছে বলে জানিয়েছে

ভারত বলছে, তারা পাকিস্তানের একটি বিমান ভূপাতিত করেছে এবং তাদের একজন পাইলট নিখোঁজ আছে। মঙ্গলবার পাকিস্তানের বালাকোটে বিমান হামলা চালায় ভারত ১৪ই ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামাতে এক জঙ্গি হামলায় ৪০ জন ভারতীয় সেনা নিহত হয়।

সোশাল মিডিয়ায় মিথ্যাচারের তুফান
আজকের দিনটি ছিল ভারত ও পাকিস্তানিদের জন্য কঠিন একটি দিন।

কিন্তু সত্যি থেকে মিথ্যেকে আলাদা করার প্রশ্নে দিনটা সাংবাদিকদের জন্য ছিল বেশ কঠিন। বিশেষভাবে সোশাল মিডিয়াতে যেভাবে মিথ্যে তথ্য ছড়ানো হয়েছে, তা ছিল অভূতপূর্ব।

পাকিস্তান সরকার দিনের শুরুতে আটক হওয়া একজন ভারতীয় পাইলটের ভিডিও টুইটারে প্রকাশ করেছিল। এবং সেটি ভাইরাল হয়।

কিন্তু এরপর বেশ ক’টি টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে দাবি করা হয় যে দ্বিতীয় ভারতীয় পাইলটেরও একটি ভিডিও রয়েছে।

ফেসবুকের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে এই ভিডিওটি প্রকাশ করা হয় এবং সেটি ২৯,০০০ বার শেয়ার হয়। টুইটারে এটি শত শত বার রিটু্ইট করা হয়।

কিন্তু ফুটেজটি ছিল ভুয়া।

আসল ফুটেজটি তোলা হয়েছিল দুই সপ্তাহ আগে।

ব্যাঙ্গালোরে ভারতীয় বিমান বাহিনীর দুটি বিমানের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত একজন এয়ারম্যানের ছবি ছিল ভিডিওতে।

বেশ কিছু টুইটার অ্যাকাউন্ট এবং কিছু পাকিস্তানী নিউজ সাইটে আরও একটি ছবি প্রকাশ করা হয়েছে।

এতে দাবি করা হয়েছে পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভারতীয় বিমান বাহিনীর বিধ্বস্ত জেট বিমানের ছবি ছিল সেটি।

কিন্তু সেটিও ছিল ভুয়া।

অন্যান্য সংবাদমাধ্যম থেকে জানা যায়, আসল ছবিটি ছিল ২০১৬ সালে।

ভারতের যোধপুর শহরের ওপর বিধ্বস্ত হওয়া একটি জেট বিমানের ছবি ছিল সেটি।

‘পাকিস্তানের হাতে শুধু একজন ভারতীয় পাইলট’

উইং কমান্ডার আভি নন্দন সার্ভিস নাম্বার দিয়ে নিজের পরিচয় দিয়েছেন

পাকিস্তানের সামরিক মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর বলেছেন, শুধু একজন ভারতীয় পাইলট তাদের ‘নিরাপত্তা হেফাজতে’ রয়েছে।

তার এই বক্তব্যের আগে তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন যে তারা দু’জন ভারতীয় পাইলটকে আটক করেছেন।

তাদের মধ্যে একজনকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

যিনি আটক হয়েছেন সেই ভারতীয় বিমান বাহিনীর পাইলটের নাম উইং কমান্ডার আভি নন্দন।

তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে পাকিস্তানী ভূখণ্ডের মধ্যে।

আটক হওয়ার পরই তা সম্পর্কে পাকিস্তানের সংবাদ মাধ্যমে কিছু তথ্য আসতে থাকে।

কোন কোন পাকিস্তানী ওয়েবসাইটে প্রথমে তার ছবি প্রকাশ করা হয়।

এর কিছু পর পাকিস্তানী টেলিভিশনে তার একটি খুবই সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকার প্রচার করা হয়।

চুয়াল্লিশ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে চোখ বাঁধা, রক্তাক্ত অবস্থায় তিনি নিজেকে ভারতীয় বিমান বাহিনীর উইং কমান্ডার আভি নন্দন বলে পরিচয় দিচ্ছেন।

নিজের সার্ভিস নম্বরটিও বলেছেন তিনি।

উইং কমান্ডার আভি নন্দনের ব্যাপারে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রাভিশ কুমার দিল্লিতে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন যে তিনি যে পাকিস্তানের হাতে আটক হয়েছেন, সে খবর তারাও পেয়েছেন।

তারা এখন সেই খবরটি ভেরিফাই অর্থাৎ যাচাই করে দেখছেন।

দু’পক্ষকে সংযত থাকার আহ্বান

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও ভারত এবং পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে আলাদাভাবে কথা বলেছেন এবং দু’পক্ষকে সামরিক তৎপরতা এড়িয়ে চলার জন্য পরামর্শ দিয়েছেন। মি. পম্পেও বলেন, “দুই মন্ত্রীকেই আমি বলেছি ভারত ও পাকিস্তান যাতে সংযত আচরণ করে এবং যে কোন মূল্যে সংঘাত পরিহার করে, আমরা সেটাই দেখতে চাই।” উত্তেজনা বাড়ার প্রেক্ষাপটে ভারতও ‘গভীর উদ্বেগ’ প্রকাশ করেছে। মস্কোর কর্তৃপক্ষও দুই দেশের সাথে যোগাযোগ করে উভয়কে ‘সংযত থাকতে’ বলেছে। বর্তমানের সমস্যাগুলো রাজনৈতিক এবং কূটনৈতিক প্রথায় সমাধান করতে হবে বলে রাশিয়া মনে করছে। চীন এবং ইয়োরোপীয় ইউনিয়নও একই ধরনের মতামত প্রকাশ করেছে।

সামাজিক মাধ্যমে সে নো টু ওয়ার

উত্তেজনা বাড়ার সাথে সাথে ভারত ও পাকিস্তানের নাগরিকদের অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজ নিজ দেশের সরকারকে সামরিক সংঘাত এড়িয়ে যাওয়ার আহ্বান করছেন।

বিশ্বব্যাপি এখন সাধারণ মানুষজন, রাজনীতিবিদ, সেলেব্রেটি এবং মানবাধিকার কর্মীরা #SayNoToWar ব্যবহার করছেন।

পাইলটকে নিরাপদে ফেরত দিতে পাকিস্তানের প্রতি ভারতের আহ্বান

পাকিস্তান থেকে ভারতের যুদ্ধ বিমানের পাইলট উইং কমান্ডার অভি নন্দনকে দ্রুত মুক্তি দেওয়ার দাবি জানিয়েছে ভারত।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলা হয়েছে যে পাকিস্তান ভারতীয় বিমান বাহিনীর একজন আহত ব্যক্তিকে ‘অশোভনভাবে’ উপস্থাপন করেছে। পাশাপাশি পাকিস্তান আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন লঙ্ঘন করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

দিল্লিতে পাকিস্তানের ডেপুটি হাইকমিশনার সৈয়দ হায়দার শাহকে তলব করার পর এই বিবৃতি দিয়েছে ভারত।

বিবৃতিতে তারা পাকিস্তানকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছে যেন আটককৃত পাইলটের যেন কোন ক্ষতি না হয়।

১৪ই ফেব্রুয়ারিতে পুলওয়ামায় ভারতীয় সেনাদের উপরে জঙ্গি হামলার পর ভারত ও পাকিস্তান উভয় তাদের প্রতিপক্ষ দেশের রাষ্ট্রদূতদের তলব করেছিল।

‘পাকিস্তানের জিম্মায় একজন পাইলট’

পাকিস্তান সেনাবাহিনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আসিফ গফুর বলেছেন যে তাদের জিম্মায় শুধুমাত্র একজন ভারতীয় পাইলট আছে।

দুইজন ভারতীয় পাইলট আটকের ঘোষণার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই তার এই বক্তব্য এলো। এর আগে সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবি করেছিলেন, আটককৃত দুজনের মধ্যে একজন পাইলটকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে ভারত একজন পাইলট নিখোঁজ হওয়ার কথা স্বীকার করেছিল। তখন তারা বলছিল যে তারা পাকিস্তানের দাবিটি যাচাই করবে।

ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনার সর্বশেষ তথ্য

পাকিস্তান বলছে, তারা ভারতের দুইটি ফাইটার জেট বিমান গুলি করে নামিয়েছে এবং দুইজন পাইলটকে গ্রেপ্তার করেছে

ভারত স্বীকার করেছে যে, তারা আকাশ যুদ্ধের সময় একটি বিমান হারিয়েছে এবং পাইলট নিখোঁজ রয়েছেন

তারা আরো দাবি করেছে, যে পাকিস্তানের একটি জেট বিমান তারা ভূপাতিত করেছে, যদিও ওই দাবি নাকচ করে দিয়েছে ইসলামাবাদ

মঙ্গলবার পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে ভারতের বিমান হামলার জবাব দিতেই ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে হামলা করে পাকিস্তানি জেট বিমান

পরিস্থিতি শান্ত করার আহবান জানিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পরিস্থিতি নিয়ে এখনো কোন মন্তব্য করেননি

১৯৭১ সালের পর এই প্রথমবারের মতো লাইন অফ কন্ট্রোল অতিক্রম করে বিমান হামলার ঘটনা ঘটলো-যদিও এখনো পরিষ্কার নয় যে, তাতে কতটা প্রাণহানি বা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে

১৪ই ফেব্রুয়ারি ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় সেনা বহরে একটি জঙ্গি হামলার পর এই উত্তেজনাকর পরিস্থিতির তৈরি হয়েছে

নিরাপত্তা বাহিনীর সাথে বৈঠকে মোদি
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিরাপত্তা বাহিনী এবং গোয়েন্দা সংস্থার প্রধানদের নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসেছেন।

এর আগে ভারত স্বীকার করেছে: তাদের একটি যুদ্ধবিমান ভূপাতিত হয়েছে এবং একজন পাইলট নিখোঁজ আছেন, কিন্তু আমরা জানিনা কিভাবে আমরা উত্তর দিবো।

পাকিস্তান বলেছে তারা আলোচনায় বসতে প্রস্তুত আছে।

পাকিস্তানে বিমান চলাচল বিঘ্নিত হবার চিত্র
পাকিস্তানের আকাশসীমা দিয়ে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞার কারণে দেশটির ওপর দিয়ে বিমান চলাচল ব্যাহত হচ্ছে।

ফ্লাইট রাডার২৪ – এর ওয়েবসাইটের ছবিতে দেখা যাচ্ছে, দক্ষিণে করাচির একটি বেসামরিক বিমানবন্দরে বিদেশ থেকে আসা কিছু আন্তর্জাতিক ফ্লাইট অবতরণ করছে।

দুবাই বিমানবন্দর নিশ্চিত করেছে যে ফ্লাইট চলাচল বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে ১০ লাখেরও বেশি পাকিস্তানি বাস করেন।

ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনায় কী প্রভাব পড়বে বাংলাদেশে?

বাংলাদেশের পরমাণু শক্তিধর বড় প্রতিবেশী দেশ ভারতের সাথে কম বেশি ভালো কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখে এসেছে বাংলাদেশের সব সরকার। সেই তুলনায় পাকিস্তানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক বিভিন্ন সময়ে তলানীতে গিয়ে ঠেকেছে।

এ অবস্থায় ভারত এবং পাকিস্তান এই দুই পরমাণু শক্তিধর দেশের মধ্যে যখন সংঘর্ষ চলছে তখন বাংলাদেশের উপর এর কী প্রভাব পড়তে পারে?

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মোদি নিশ্চুপ
ভারত-পাকিস্তান সীমান্তে আজ সারাদিনের ঘটনাপ্রবাহ নিয়ে এখনো নিশ্চুপ রয়েছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

পাকিস্তানের হামলা এবং বিমানযুদ্ধের পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলন ছাড়া বুধবার সকাল থেকে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের আর কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী একটি দীর্ঘ সংবাদ সম্মেলন করেছে এবং প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান জাতির উদ্দেশ্যে একটি ভাষণ দিয়েছেন।

মে মাসে নির্বাচনের মুখোমুখি হতে যাওয়া নরেন্দ্র মোদি মঙ্গলবার ভারতীয়দের ভরসা দিয়ে বলেছিলেন তিনি “মাতৃভূমিকে সব ধরণের অপমান এবং হুমকি থেকে রক্ষা করবেন”।

ইমরান খান বারবার বলেছেন পুলওয়ামাতে ১৪ই ফেব্রুয়ারির জঙ্গি হামলার প্রতিক্রিয়ায় ভারত যা করেছে- তার পেছনে মূল কারণ হচ্ছে আসন্ন নির্বাচন।

ভারত অবশ্য এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে এবং বলছে তাদের প্রতিবেশী দেশই জঙ্গিদের নিরাপদ আশ্রয় দিচ্ছে।

আকাশ যুদ্ধ নিয়ে ভারত যা বলছে
ভারতে একটি সংক্ষিপ্ত সংবাদ সম্মেলনে:
ভারতীয় মুখপাত্র বলেছেন, মঙ্গলবারের অভিযানের জবাব দিতে পাকিস্তান ভারতের সামরিক স্থাপনা লক্ষ্যবস্তু করেছে
তিনি বলেছেন, ভারতীয় বিমান বাহিনী তাৎক্ষণিকভাবে জবাব দিয়েছে এবং তাদের হামলা ঠেকিয়ে দিয়েছে
ভারতের মিগ-২১ বিমানের হামলায় একটি পাকিস্তানি বিমান পাকিস্তান অংশে ভূপাতিত হয়েছে
আকাশ যুদ্ধে ভারত একটি মিগ-২১ হারিয়েছে এবং পাইলট এখনো নিখোঁজ

তবে পাকিস্তান বলেছে, তারা কোন সামরিক লক্ষ্যে হামলা করেনি এবং একটি বিমান ভুপাতিত হওয়ার বক্তব্য নাকচ করে দিয়েছে।

ভারত-পাকিস্তান দ্বন্দ্বে যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা কী হবে?
সংকট নিরসনে বাইরের শক্তিগুলো বিশেষ করে যুক্তরাষ্ট্র কী করতে পারে সেটি নিয়ে আলোচনা করছেন বিশ্লেষকরা।

পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ বিষয়ে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং আনের সাথে আলাপ করতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এখন ভিয়েতনামে রয়েছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সেক্রিটারি অফ স্টেট মাইক পম্পেও ভারত ও পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে কথা বলেছেন।

“আমি দুদেশের মন্ত্রীদেরই বলেছি যেন ভারত ও পাকিস্তান ধৈর্য্য নিয়ে যেকোন মূল্যে খারাপ পরিস্থিতি এড়িয়ে চলে।”

বিশ্বের জন্য জর্জ ডব্লিউ বুশ প্রশাসন সবচেয়ে যে ভাল কাজটি করেছিলেন সেটি সম্ভবত ২০০২ সালে ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনা নিরসন করা। ২০০২ সালে রিচার্ড আর্মিটেজ এর সুক্ষ্ম কূটনীতির কথা স্মরণ করছি। আমার সন্দেহ আছে যুক্তরাষ্ট্র এখনকার পরিস্থিতিতে একই ভূমিকা পালন করতে সক্ষম কি-না।

আমরা দুটি ভারতীয় বিমান ভূপাতিত করেছি- ইমরান খান
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, দুটি ভারতীয় মিগ বিমানকে ভূপাতিত করা হয়েছে।

এর আগে ভারত বলেছিল তারা একটি বিমান হারিয়েছে।

“আমরা তাদের দুটো মিগ বিমান ভূপাতিত করেছি। পাইলটেরা আমাদের সাথেই আছে” বলেন মি. খান।

“কিন্তু এরপর আমরা কোথায় যাবো? আমি ভারতকে প্রশ্ন করছি। আমাদের অবশ্যই দায়িত্বশীল হতে হবে।”