তুরস্কে বিরোধী দলীয় নেতার বিরুদ্ধে এরদোগানের মামলা!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আঙ্কারা: তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগান ও তার পরিবারের বিরুদ্ধে কুৎসাপূর্ণ মন্তব্যের জন্য প্রধান বিরোধীদল ’পিপল রিপাবলিকান পার্টি’র প্রধানের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা করা হয়েছে।

শুক্রবার রাষ্ট্র পরিচালিত সংবাদমাধ্যম আনাদুলো এজেন্সির বরাদ দিয়ে এএফপির খবরে এই তথ্য জানানো হয়।

কুৎসাপূর্ণ মন্তব্যের মাধ্যমে ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণের জন্য ৩,৮০,০০০ মার্কিন ডলার ক্ষতিপূরণ চেয়ে পিপল রিপাবলিকান পার্টির প্রধান কেমেল কিলিকদারোগলোর বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করা হয়।

ইস্তাম্বুল সিভিল কোর্টে মামলাটি দায়ের করেন এরদোগানের আইনজীবী আহমেদ ওজেল।

মঙ্গলবার পার্লামেন্টে পিপল রিপাবলিকান পার্টির এক অনুষ্টানে এরদোগানের উদ্দেশ্য কিলিকদারোগলো প্রেসিডেন্ট এরদোগানের কাছে জানতে চান যে তার সন্তানেরাসহ তার পরিবার লাখ লাখ ডলার পাচার করছে সে বিষয়ে তিনি অবগত আছেন কিনা।

এরদোগানের উদ্দেশ্য কিলিকদারোগলো বলেন, ‘আপনার সন্তানেরা কি লাখ লাখ ডলার বিদেশি অ্যাকাউন্টে পাঠাচ্ছে না?’

তার ওই বক্তব্যে প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধেও অপবাদ দেয়া হয় বলে বলে আনাদুলোর প্রতিবেদনে বলা হয়।

কুর্দিদের আর অস্ত্র সরবরাহ করবে না যুক্তরাষ্ট্র: এরদোগানকে ট্রাম্পের ফোন
সিরিয়ার কুর্দি মিলিশিয়াদের (ওয়াইপিজি) জন্য যুক্তরাষ্ট্র তার অস্ত্র সরবরাহ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে বলে জানিয়েছেন তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলাত কাভাসুগলো। এক টেলিফোনালাপে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোগানকে এই প্রতিশ্রুতি দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

শুক্রবার রাজধানী আঙ্কারায় এক সংবাদ সম্মেলনে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলাত কাভাসুগলো এই তথ্য জানান।

অস্ত্র সরবরাহ না করার জন্য ইতোমধ্য ট্রাম্প তার প্রশাসনকে নির্দেশনা দিয়েছেন বলে কাভাসুগলো জানান।

কুর্দি মিলিশিয়াদেরকে অস্ত্র সরবরাহ ও সমর্থণের জন্য তুরস্ক দীর্ঘদিন ধরে যুক্তরাষ্ট্রকে অভিযুক্ত করে আসছে।

সংবাদ সম্মেলনে কাভাসুগলো বলেন. ‘ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের অস্ত্র অস্ত্রের বিধান সম্পর্কে আমাদের অস্বস্তি ট্রাম্প অনুভব করতে পেরেছেন। ট্রাম্প অত্যন্ত স্পষ্টভাবে বলেছেন যে তিনি ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের অস্ত্র সরবরাহ না করার নির্দেশ দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘আমরা তার এই প্রতিশ্রুতিকে স্বাগত জানাই এবং বাস্তবে এটির বাস্তবায়ন দেখতে চাই।’

কাভাসুগলো জানান, শুক্রবার তুরস্ক ও যুক্তরাষ্ট্রের দুই নেতার ওই টেলিফোনালাপে ট্রাম্প তার সিদ্ধান্তে অনড় থাকার প্রতিশ্রুতি দেন।

এছাড়াও কাভাসুগলো জানান, সিরিয়া শান্তি আলোচনায় কারা উপস্থিত থাকবে সে বিষয়ে রাশিয়া, ইরান এবং তুরস্ককে যৌথভাবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

আলোচনায় কুর্দি প্রতিনিধিদের উপস্থিতি আঙ্করার কাছে গ্রহণযোগ্য হবে না বলে তিনি জানান।

এর আগে, ট্রাম্প টুইট করেছিলেন যে তিনি মধ্যপ্রাচ্যে শান্তি ফেরাতে এরদোগানের সঙ্গে কথা বলবেন।

তুরস্কের নিষিদ্ধঘোষিত বিদ্রোহী কুর্দিদের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কারণে সিরিয়ার কুর্দি যোদ্ধাদেরকে তুরস্ক সন্ত্রাসী হিসেবে বিবেচনা করে থাকে। সিরিয়ার কুর্দি যোদ্ধাদের অস্ত্র সরবরাহে মার্কিন সিদ্ধান্ত ন্যাটোর এই দুই মিত্র রাষ্ট্রের মধ্যে সম্পর্ককে তিক্ততায় পরিনত করেছে।

এদিকে, সুস্পষ্টভাবে ওয়াইপিজি’র নাম উল্লেখ না করে হোয়াইট হাউস জানায়, এর মাধ্যমে সিরিয়ায় তাদের অংশীদারদের জন্য মার্কিন সমর্থন ‘সমন্বয়’ করা হয়েছে।

তথাকথিত ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইয়ে কুর্দি মিলিশিয়াদের যুক্তরাষ্ট্র গুরুত্বপূর্ণ পাটনার হিসেবে দেখে কিন্তু আঙ্কারা গ্রুপটিকে সন্ত্রাসীগোষ্ঠী হিসেবে দেখে থাকে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।